স্বাস্থ্য সুরক্ষায় রসুন

প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক হিসেবে রসুন খেতে পারেন রোজ। এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। রান্নায় ব্যবহারের পাশাপাশি কাঁচা চিবিয়ে খেলেই বেশি উপকার পাবেন।

* রসুনে রয়েছে অ্যালিন নামক একটি পদার্থ। রসুন চিবিয়ে খাওয়ার সময় এটি সক্রিয় পদার্থ অ্যালিসিনে পরিণত হয়। অ্যালিসিনে সালফারের উপস্থিতিই রসুনের নির্দিষ্ট স্বাদ-গন্ধের কারণ। অ্যালিসিন সক্রিয় হওয়ার কারণেই এটি সালফারযুক্ত নানা সক্রিয় যৌগে পরিণত হয়। এগুলো শ্বেত রক্তকণিকার শক্তি বাড়িয়ে দেয়। ফলে সাধারণ সর্দি-কাশি যে ভাইরাসের জন্য হয়, সেগুলোর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে ওঠে শ্বেত রক্তকণিকায়। তাই প্রতিদিন রসুন খেলে সর্দি-কাশির আশঙ্কা কমে।

* রসুনের নানা ধরনের অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট থাকে। কোলেস্টেরল ছাড়াও এটি নিয়ন্ত্রণে রাখে রক্তে সুগারের মাত্রা।

* খালি পেটে রসুন খেলে শরীরে থাকা দূষিত উপাদান দূর হয়।

* ওজন কমাতে সাহায্য করে।

* উচ্চ রক্তচাপ কমাতেও এর জুড়ি নেই।

* তবে অতিরিক্ত রসুন খাবেন না। প্রতিদিন দুই/এক কোয়া খান।

* চিবিয়ে খেলে উপকার বেশি পাবেন।

* রান্না করার সময় কুচি কুচি কেটে বা থেঁতো করে দিন রসুন। এতে সক্রিয় উপাদান অ্যালিসিনের মাত্রা বাড়ে।

* কুসুম গরম পানিতে অর্ধেকটি লেবুর রস আর দুই কোয়া রসুন থেঁতো করে মিশিয়ে খান।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *