‘বিদেশে উচ্চশিক্ষার স্বপ্নপূরণে কাজ করছে স্টাডি সল্যুশন্স’

সদা হাসি–খুশি, সদালাপি, প্রাণোচ্ছ্বল ও সদাচারে বিশ্বাসীতরুণ ব্যারিস্টার এরশাদ আহমেদ নিশান। জন্ম টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুরে। তিনি স্টাডি সল্যুশন্স এর সিইও। যুক্তরাজ্য এবং নিউজিল্যান্ডের শীর্ষস্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। নিউজিল্যান্ডের স্কাই টিভি, লন্ডন সাউথ ব্যাংক স্টুডেন্টস ইউনিয়ন, ইউনিভার্সাল সলিসিটরস,ব্রিটিশ রেডক্রস,মেডিসিন্স স্যান্স ফ্রন্টিয়ারেস (এমএসএফ) এবং সেভ দ্যা এজ- এ কাজ করেছেন। তাঁর আন্তর্জাতিক পর্যায়ের শিক্ষাগত যোগ্যতা এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নানা অভিজ্ঞতার কারণে বিদেশে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে সম্ভাব্য সকল সুযোগ-সুবিধা বা অসুবিধার ব্যাপারে শিক্ষার্থীদেরকে পূর্বেই অবগত করায় তাকে সক্ষম করেছে।  তিনি নিউজিল্যান্ড থেকে ব্যারিস্টারি এবং যুক্তরাজ্য থেকে এলএলবি ও এলএলএম সম্পন্ন করেন। বহির্বিশ্বে শিক্ষার সুযোগ প্রকল্প, ব্যাবসায় ক্ষেত্রে কাস্টমারদের উপযুক্ত উপদেশ প্রদান,বাণিজ্যিক বিবাদের সমাধান,লোন সিন্ডিকেশন,বিদেশে বিনিয়োগ এবং অপরাধ মামলা নিরসনে বাংলাদেশের শীর্ষ আইন সহায়তা প্রতিষ্ঠান আজাদ এন্ড কোম্পানিতে কাজের মাধ্যমে তিনি পেশাগত উৎকর্ষতা অর্জন করছেন।  স্টাডি সল্যুশন্সের লক্ষ্য অর্জনে তার অবিরাম সংগ্রাম ও সততা এবং দেশে-বিদেশে শক্তিশালী নেটওয়ার্কের মাধ্যমে শিক্ষা বিষয়ক পরামর্শ প্রদানে পারদর্শীতা স্টাডি সল্যুশন্সকে বিশ্বস্ত শিক্ষা বিষয়ক পরামর্শদাতা সংস্থায় পরিণত করেছে। সেবার মান বৃদ্ধির লক্ষ্যে ও শিক্ষার্থীদের সর্ব্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করতে তিনি বদ্ধ পরিকর। শিক্ষার্থীদের আবেদন প্রক্রিয়ায় চূড়ান্ত মূল্যায়ন ধাপ পর্যন্ত প্রতিটি ধাপে পেশাদারিত্ব সম্পন্ন যোগ্য ও অভিজ্ঞ কাউন্সিলর এবং অন্যান্য সাহায্য প্রদানকারী টিমের সাথে কাজ করেন তিনি। এই তরুণ উদ্যোক্তার মুখোমুখি হয়েছিল পরিবার ডটনেটের  বিশেষ প্রতিবেদক  রবিউল ইসলাম।

রবিউল ইসলাম: স্টাডি সল্যুশন্স সম্পর্কে জানতে চাই।

এরশাদ আহমেদ নিশান: বিদেশে উচ্চশিক্ষায় সেবাদান করছে স্টাডি সল্যুশন্স।শিক্ষা বিষয়ক পরামর্শদাতা সংস্থাটির দেশে এবং বিদেশে শক্তিশালী নেটওয়ার্ক ও শাখা রয়েছে। শিক্ষার্থীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা, কাজের অভিজ্ঞতা, আর্থিক সক্ষমতা এবং আগ্রহ ও ইচ্ছার উপর ভিত্তি করে উপযুক্ত দেশ, উপযুক্ত বিষয় এবং বিশ্ববিদ্যালয় বিবেচনা করতে পরামর্শ দেয়া হয়। অভিজ্ঞ পেশাদার টীম ও ভ্রমণ পরামর্শদাতারা বিদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণে আগ্রহী শিক্ষার্থীদেরকে সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য ও দিক-নির্দেশনা প্রদান করে ও তাদের পছন্দমত প্রতিষ্ঠানে ভর্তির ব্যবস্থা করে থাকে। বিদেশে উচ্চশিক্ষা লাভের মাধ্যমে উন্নত ক্যারিয়ার গঠনের স্বপ্নপূরণে বিশ্বের বিভিন্ন নামকরা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির ব্যবস্থা করে সংস্থাটি। যেটি ইতোমধ্যে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, ইউরোপ, নিউজিল্যান্ড ও মালয়েশিয়াসহ বিশ্বের আরো অনেক দেশে শিক্ষার্থীদের পড়াশুনার ব্যবস্থা করেছে। দেশের প্রধান পাঁচটি শহরে আমাদের শাখা রয়েছে, রাজধানী ঢাকায় রয়েছে হেড অফিস। যেখানে আমাদের নিবেদিত প্রাণ কর্মকর্তাগণ সেরা পরামর্শ ও আন্তরিক সেবা প্রদান করেন, মানসম্মত আলোচনা ও নৈতিক উপদেশ দেন। ফলে স্টাডি সল্যুশন্সের উপর আস্থা রাখে শিক্ষার্থীরা। বিদেশি হাই কমিশন, দূতাবাস ও শিক্ষা সম্পর্কিত অন্যান্যদের সাথে আমাদের সুসম্পর্ক রয়েছে। উন্নত শিক্ষা বিষয়ক সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে আবশ্যক এবং মানসম্মত সেবা প্রদানই এর জন্য একটি ট্রেডমার্ক।

রবিউল : স্টাডি সল্যুশন্স কী সেবা দেয়?

নিশান:স্টাডি সল্যুশন্সের সেবাসমূহ হচ্ছে:

১. বিদেশে শিক্ষা বিষয়ক পরামর্শ প্রদান: যখন কোনো বিষয়ে অধ্যয়নের পরিকল্পনা গ্রহণ করবেন তখন সেটা মানসিক চাপের সৃষ্টি করে, অনেক সময় ব্যয় হয় এবং সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগতে হয়। এটা আরো কঠিন অবস্থার সৃষ্টি করে যখন আপনি বিদেশে কোনো বিষয়ে অধ্যয়ন করতে চান। শিক্ষার ব্যপারে সিদ্ধান্ত নিতে গিয়ে আপনি যে ধরনের প্রশ্নের সম্মুখীন হতে পারেন সেগুলো হলো: বিদেশে শিক্ষাগ্রহণ আসলেই কি ফলপ্রসু? কোথায় পড়তে যাব? স্কলারশীপ প্রাপ্তির জন্য আমি কি উপযুক্ত? ভর্তি এবং ভিসা প্রক্রিয়ায় কী কী নথিপত্র লাগবে? ভিসার আনুষ্ঠানিকতাগুলো কী কী? বিদেশে পড়তে গিয়ে কোথায় থাকব? সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যপার হলো কোন বিষয় নিয়ে পড়লে উন্নত ক্যারিয়ার গঠনে দীর্ঘ মেয়াদে সবচেয়ে ভালো ফল বয়ে নিয়ে আসবে? এসব বিষয়ে স্টাডি সল্যুশন্স আপনাকে এবং আপনার পরিবারকে দিক-নির্দেশনা প্রদান করে। বিদেশে উচ্চশিক্ষার ব্যাপারে বিনামূল্যে পরামর্শ প্রদান, ভিসা সহায়তা, সাক্ষাতকারের জন্য পূর্বপ্রস্তুতি, দেশ ত্যাগের পূর্বে পরামর্শ এবং অন্যান্য সেবা-সহায়তা প্রদান করে। আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা, এক্সট্রা কারিকুলার ও অন্যান্য যোগ্যতা, ইংরেজিতে কথা বলার দক্ষতা ইত্যাদি মূল্যায়নের পর আপনার আবেদনের প্রেক্ষিতে সর্ব্বোচ্চ সাফল্য এনে দেয়ার চেষ্টা করে থাকে।

২. বিভিন্ন দেশের পরিচিতি: বিদেশে শিক্ষাগ্রহণের ক্ষেত্রে প্রাথমিক ধাপ হলো দেশ বাছাই করা। স্টাডি সল্যুশন্স বিশ্বের বিভিন্ন দেশের জনতত্ত্ব, আবহাওয়া, সংস্কৃতি, জীবনপ্রণালী এবং শিক্ষাপদ্ধতি সম্পর্কে অবহিত করে অভিভাবকের ভূমিকা পালন করে। উচ্চশিক্ষা গ্রহণের জন্য দেশ নির্বাচনের সময় আপনার চাহিদাকে মাথায় রেখে শিক্ষাক্ষেত্রে বিনিয়োগ করতে, স্কলারশীপ অনুসন্ধান, ভিসাপ্রাপ্তি ও অন্যান্য বিষয়সমূহ মূল্যায়ন করা  হয়ে থাকে। মনে রাখবেন, কাছাকাছি আরামদায়ক বাসস্থানে থাকলে ভালোভাবে অধ্যয়নের জন্য সুন্দর পরিবেশ পাওয়া যাবে। স্টাডি সল্যুশন্স- এর পরামর্শদাতারা ব্যক্তিগতভাবে আপনাকে পরামর্শ প্রদান করে এবং আপনার ই-মেইলে এ সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য প্রেরণ করেন।

৩. বিষয় নির্বাচন: আপনার জীবনের লক্ষ্যকে সাফল্যের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দিতে বিষয় নির্বাচনের সময় স্টাডি সল্যুশন্স- এর বিশেষজ্ঞরা আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা, ক্যারিয়ারের লক্ষ্য এবং আগ্রহ বিবেচনা করে যা আপনার ক্যারিয়ার গঠনের জন্য অতীব জরুরি। বিষয় নির্বাচনের সময় আপনার সাথে সহযোগি হিসেবে কাজ করি যা আপনার ভবিষ্যতে সম্ভাব্য সেরা ক্যারিয়ার গঠনে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। স্টাডি সল্যুশন্স- এর পরামর্শদাতারা বিশ্বের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অফারকৃত বিষয়সমূহ নিয়মিত আপডেট করে। আমাদের পরামর্শদাতাদের কাছ থেকে বিনামূল্যে পরামর্শ গ্রহণের সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকা পাবেন।

৪. ভর্তি সহায়তা: বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন ধরনের ভর্তি প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হয় যেটা শিক্ষার্থীকে বিভ্রান্ত করে। ইন্টারনেট থেকে প্রাপ্ত বিপুল তথ্য তাকে আরো বেশি বিভ্রান্তিতে ফেলতে পারে। আমরা আপনার পারিপার্শ্বিক অবস্থা এবং যোগ্যতা বিবেচনা করে এসমস্ত বিপুল তথ্য থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য বাছাই করি যাতে উপযুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় নির্বাচন করতে পারেন। আপনার আবেদন গৃহিত হওয়ার ক্ষেত্রে যেন সর্বোচ্চ সুযোগ পাওয়া যায় সে লক্ষ্যে আমরা বিশ্ববিদ্যালয় সমূহের বিভিন্ন নিয়ম-কানুন নিয়মিত আপডেট করি। স্টাডি সল্যুশন্স-এর মাধ্যমে আবেদন গৃহিত হওয়ার হার অনেক বেশি। যা প্রতিষ্ঠানটিকে বিশ্বস্ত শিক্ষাপরামর্শদাতা সংস্থায় পরিণত করেছে।

৫. আর্থিক ব্যবস্থাপনা: তুলনামূলক কম খরচে শিক্ষাগ্রহণ, একই সাথে যে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে চান তার নিকটবর্তী থাকার ব্যবস্থা এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের খরচাবলির প্রকৃতি বিবেচনা করে স্টাডি সল্যুশন্স-এ আমাদের অভিজ্ঞ হিসাববিদগণ উপযুক্ত হিসাব প্রস্তুত করেন। দেশ, বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিষয় নির্বাচনের সময় আমাদের উপদেষ্টাগণ আপনার আগ্রহকে আন্তরিকভাবে বিবেচনা করেন। এছাড়া স্কলারশিপ প্রাপ্তির সুযোগ এবং শিক্ষার ক্ষেত্রে আর্থিক সহায়তা পাওয়ার বিষয়ে বিস্তারিত জানতে পারবেন। স্টাডি সল্যুশন্স বিভিন্ন আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ে স্কলারশিপ পেতে সহায়তা প্রদান করে। আপনার একাডেমিক পারফরমেন্স অনুযায়ী বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কলারশিপ গ্রহণ করতে পারেন। স্কলারশিপ এবং অনুদান বিদেশে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করে এবং অর্থের প্রাথমিক উৎস হিসেবে কাজ করে, বিশেষ করে আপনার যদি স্বল্প বাজেট থাকে। আমাদের পরামর্শদাতারা বিশ্বের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কলারশিপের ব্যাপারে আপনাকে অবহিত করবে।

৬.নিরাপত্তা: আপনি যখন হাজার মাইল দূরে অবস্থান করেন আপনার পরিবার আপনার ব্যাপারে তখন অনেক বেশি উদ্বিগ্ন থাকে। স্টাডি সল্যুশন্স বিশ্বব্যাপি এমন সব প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করে যেগুলো ইউনেস্কো ঘোষিত বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ দেশ হিসেবে পরিচিত। সেগুলো হলো- কানাডা, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, সুউজারল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, দুবাই, আয়ারল্যান্ড, মালয়েশিয়াসহ বিশ্বের আরও অনেক দেশ। বিদেশে শিক্ষাগ্রহণের ক্ষেত্রে নিরাপদ পরিবেশ মানসিক চাপমুক্ত হয়ে শিক্ষাহণ এবং প্রবাস জীবনকে আনন্দময় করে তোলে।

৭. বিদেশে ক্যারিয়ার গঠন: বিদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের পর আমাদের উপদেষ্টারা আপনাকে আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার গঠনের দিকনির্দেশনা প্রদান করে। শিক্ষাগ্রহণের সময় এসব বিষয়ে জেনে নিতে পারবেন যা আপনাকে বিশ্বের বিভিন্ন প্রতারণা চক্রের হাত থেকে বাঁচতে অত্যন্ত সাহায্য করবে। ক্যারিয়ার বিষয়ক উপদেষ্টাগণ আপনার শিক্ষা শেষে করণীয় সম্পর্কে প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করবেন।

৮. ভিসা সহায়তা: ভিসা একটি প্রবেশাধিকার ক্লিয়ারেন্স, যা ভিনদেশে প্রবেশ করার জন্য অনুমতি প্রদান করে। বিদেশে অধ্যয়নের জন্য শিক্ষার্থীদের স্টুডেন্ট ভিসা বা স্টুডেন্ট পাস থাকতে হবে। বিশ্বব্যাপি নানা নিরাপত্তা ঝুঁকির কারণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ প্রতিনিয়ত ভিসা সম্পর্কিত নিয়মাবলি পরিবর্তন করে। যদি এসব বিষয়ে আপনি অনবহিত থাকেন তাহলে সাথে সাথেই আপনার ভিসা বাতিল হয়ে যাবে। আমাদের  বিদেশে উচ্চশিক্ষার ব্যাপারে আপডেটকৃত বিভিন্ন নিয়ম-কানুন সম্পর্কে পর্যাপ্ত অভিজ্ঞতা সম্পন্ন কর্মকর্তাদের একটি টিম রয়েছে। প্রতিবছর স্টাডি সল্যুশন্স অনেক বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদেরকে  বিশ্বের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির ব্যাপারে সহায়তা করছে। শিক্ষার্থী-ভিসা এবং শিক্ষাসম্পর্কিত ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধাসমূহ  পাওয়া সবসময় সহজতর হয় না।  যে কোনো দেশ শিক্ষার্থীর শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়ে তার থেকে উপকার গ্রহণ করতে চায় কিন্তু তার কৃত অপকর্মের দায়ভার গ্রহণ করতে চায় না। এজন্য প্রত্যেক দেশের ভিন্ন ভিন্ন নিয়ম ও নীতিমালা রয়েছে। মোটকথা হলো ভিসা প্রাপ্তির জন্য অনেক দলিল পত্রাদি ও নানা আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে হয়।  আমাদের রয়েছে অভিজ্ঞ ভিসা পরামর্শদাতা এবং প্রাক্তন ভিসা কর্মকর্তাদের একটি টিম যারা কয়েক দশক ধরে  বিশ্বের বিভিন্ন দূতাবাসের সাথে কাজ করছে এবং দ্রুত ভিসা প্রাপ্তি নিশ্চিত করছে।

৯. বাসস্থান নির্বাচন: আপনার আর্থিক সামর্থ বিবেচনা করে অসংখ্য বিকল্প ব্যবস্থার মধ্য থেকে সীমিত বাজেটের মধ্যে বিদেশে মানসম্পন্ন ও উপযুক্ত পরিবেশে বাসস্থান নির্বাচন করা অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিং একটি বিষয়। যাইহোক, যাতায়াত এবং কাজের অবস্থান বিবেচনা করে এমন একটি আবাসন নির্বাচন করা অতিব জরুরি, কেননা এটি আপনার খরচকে প্রায় ২০ ভাগ কমিয়ে দিতে পারে। খরচ কমানোর ক্ষেত্রে এটা একটা ‘মিনি স্কলারশিপ’ হিসেবেও ভূমিকা রাখতে পারে। আমাদের বাসস্থান বিষয়ক পরামর্শদাতাগণ উপযুক্ত বাসস্থান সম্পর্কে পর্যাপ্ত তথ্য সরবরাহ করে এবং ইতিপূর্বে স্টাডি সল্যুশন্সের মাধ্যমে যারা বিদেশে অধ্যয়নের জন্য গেছেন তাদের সাথে পরিচিত হতে আপনাকে সহায়তা করে।

১০. ভ্রমণ বিষয়ক নির্দেশনা : বর্তমান বিশ্বে বিমান পরিবহনগুলির মধ্যে ব্যাপক প্রতিযোগিতার কারণে উপযুক্ত বিমান বাছাই করে ভ্রমণ করা কঠিন ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। বৈচিত্রময় ও নানা ধরনের বিমান ভাড়ার মধ্য থেকে উপযুক্ত বিমানটি বাছাই করে নিতে পারলে বিদেশে শিক্ষাব্যয় অনেক কমে যায়। স্টাডি সল্যুশন্স-এর ভ্রমণ উপদেষ্টাগণ যাতায়াতের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য সরবারহ করে বিদেশে আপনার গবেষণা কার্যক্রম সম্পন্ন করতে সহায়তা করে।

১১. ভাষাগত দক্ষতার উন্নয়ন: আপনি যে কোনো হোস্ট দেশের চলিত ভাষায় সাবলিলভাবে  কথা বলতে না পারলে বিদেশে অধ্যয়ন করা খুব কঠিন হয়ে পড়বে। বেশিরভাগ দেশের লোকই ইংরেজিতে কথা বলে, তারা আশা করে আপনিও তাই করবেন, যা আপনার শিক্ষা এবং কর্মজীবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। হোস্টদের সাথে তাদের ভাষায় যদি কথোপকথন করতে পারেন তাহলে সহায়তার জন্য আপনার অনুরোধ তারা আরো বন্ধুত্বপূর্ণ এবং গ্রহণযোগ্যতার সাথে গ্রহণ করবে। আপনি যদি ইংরেজি পড়ায়, লেখায় এবং ইংরেজিতে কথা বলায় অনেক দক্ষ হন তাহলে নিয়োগকর্তারা আপনার সিভিতে আরও আগ্রহী হবেন, যা বিশ্ব বাজারে আপনার কাজ করার যোগ্যতা প্রমাণ করবে। স্টাডি সল্যুশন্স ইংরেজি ভাষায় কথা বলার দক্ষতা উন্নত করতে আগ্রহী প্রার্থীদের উৎসাহিত করে। কোচিং এবং প্রশিক্ষণ অধিবেশনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের প্রস্তুত করে। আপনার পছন্দের ইংরেজি ভাষাভাষি দেশে যাতে সহজে ভিসা পান সেলক্ষ্যে স্টাডি সল্যুশন্স ইংরেজির স্বীকৃত পরীক্ষা গ্রহণ করে। শিক্ষার্থীদের ইংরেজি দক্ষতাকে উন্নত করতে পিটিই একাডেমির অফিসিয়াল পরীক্ষা কেন্দ্র ছাড়াও, পার্সনালাইজড ই-হাউস ইংরেজি কোচিং সরবরাহ করে এবং অস্ট্রেলিয়ার বিখ্যাত ম্যাকক্যারি ইউনিভার্সিটি দ্বারা উন্নত অনলাইন প্রশিক্ষণ পদ্ধতির মাধ্যমে আপনাকে মূল্যায়ন এবং প্রশিক্ষিত করে। সকল অফিসে একটি ইন-হাউস আইইএলটিএস বিভাগ রয়েছে। বিশেষজ্ঞ ইংরেজি প্রশিক্ষকদের একটি প্যানেল রয়েছে যারা প্রার্থীকে দক্ষ করে গড়ে তুলতে সেরা মানের আইইএলটিএস প্রশিক্ষণের উপর গুরুত্ব দিয়ে থাকে।

রবিউল: নিউজিল্যান্ড ‘ল’ একাডেমি কী কাজ করছে?

নিশান: নিউজিল্যান্ড ‘ল’ একাডেমি এর স্লোগান হচ্ছে  ‘ব্যারিস্টার হওয়ার সোপান’। নিউজিল্যান্ড ‘ল’ একাডেমি (এনজেডএলএ)  বাংলাদেশে ‘নিউজিল্যান্ড বার’ পরিচালনার পথপ্রদর্শক। দেশের প্রথম প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ‘নিউজিল্যান্ড বার’-এ শিক্ষা গ্রহনের ব্যবস্থা করে। প্রগ্রাম লিডার নিউজিল্যান্ড থেকে ব্যারিস্টার অ্যাট ’ল’ সম্পন্ন করা। শিক্ষার্থীদের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে, প্রমাণ সংগ্রহের পদ্ধতি শেখাতে, আচার-আচরণ ও কর্মদক্ষতা বাড়াতে এবং আরো অন্যান্য বিশেষ প্রশিক্ষণ প্রদান করতে নিউজিল্যান্ড বার একই সাথে এনজেডএলপি (নিউজিল্যান্ড ‘ল’ অ্যান্ড প্রাক্টিস এক্সাম) অ্যান্ড পিএলএসসি (প্রফেশনাল লিগাল স্টাডি কোর্স)-এর সমন্বয় সাধন করেছে। যদি কোনো শিক্ষার্থী এনজেডএলপি এবং পিএলএসসি সম্পন্ন করে তাহলে নিউজিল্যান্ড হাইকোর্টে ব্যারিস্টার হিসেবে তালিকাভুক্ত হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করতে পারবে। নিউজিল্যান্ড বারে স্নাতকধারী হিসেবে আবেদন করলে লাগবে:  ১. এসএসসি/ ও লেভেল এবং এইচএসসি/এ লেভেল ২. এলএলবি (সম্মান) ৩. ইংরেজি বলা ও লেখার দক্ষতা। আর আইনজীবী হিসেবে আবেদন করলে লাগবে: ১. এসএসসি/ ও লেভেল এবং এইচএসসি/এ লেভেল ২. এলএলবি (সম্মান) ৩. আইনজীবীর সনদপত্র/ বার কাউন্সিলের তালিকাভুক্ত আইনজীবী ৪. ইংরেজি বলার ও লেখার দক্ষতা ইত্যাদি।

রবিউল: ব্যস্ততার মাঝেও সময়দানের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

নিশানঃ আপনাকে এবং আপনার মাধ্যমে পাঠক ও সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *