শিশুর স্বাস্থ্যঝুঁকি

মোবাইল ফোন বিকিরণের নেতিবাচক প্রভাব সবার উপরে পরলেও শিশুদের ক্ষেত্রে এর প্রভাব সবচেয়ে বেশি। গবেষক ড. এ্যান লুইস জিটলম্যান তার গবেষণায় এরুপ জিনিষের প্রভাবের ক্ষেত্রে প্রাপ্ত বয়ষ্কদের চেয়ে শিশুদের বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন। তিনি দেখিয়েছেন যে শিশুদের মস্তিষ্কের মোবাইল সৃষ্ট বিকিরনের কারণে তাদের স্মৃতিশক্তি নষ্ট হয় সাথে সাথে ভয় পাওয়ার প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। যা হোক, শিশুদের ওপর বিকিরণের এ প্রভাব অনেক মাতা-পিতারই অজানা।

আমেরিকান মেডিকেল এ্যাসোসিয়েশন এর একটি গবেষণায় এ বিকিরণের প্রভাবে যে লক্ষণগুলো দেখা যায়, তা হলো:
১. অবসাদ ৬৪ গুণ পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়
২. কান্তি ৩৭ গুণ বৃদ্ধি পাবে
৩. ক্ষুধা বা রুচি ২৫ গুণ কমে যাবে
৪. মস্তিষ্কের ক্যান্সার সহ মেরুদন্ডকে আক্রান্ত করা।
৫. লিউকেমিয়া রোগে আক্রান্ত হওয়া।
৬. ছেলে শিশু যখন পুরুষে পরিণত হয়, অনেক সময় বন্ধাত্যের শিকার হওয়া।
৭. সুপরিণত হতে বাধার সম্মুখীন হওয়া।
৮. হৃষ্টপুষ্ট স্বাস্থ্যের অবনতি হয়।

মোবাইল যতক্ষণ সম্ভব নিজের থেকে দুরে রাখুন ব্লটুথ হেডফোনের মাধ্যমে কথা বলা শুরু করুন এবং শিশুদের মোবাইল ব্যবহার থেকে বিরত রাখুন।

সংগৃহীত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *