শিশুকে কখন কীভাবে আদব-কায়দা শেখাবেন

ছেলেবেলাতেই দুষ্টুমির সাথে সাথে শিশুদের আদব-কায়দা শেখানোর কাজটা খুব ভালোভাবেই করতে হবে বাবা-মা’কে। কারণ দুষ্টুমিগুলো হয়তো বয়সের সাথে সাথে চলে যাবে কিন্তু শিশুকে যদি ভালোভাবে আদব-কায়দা না শেখানো হয় তবে বাবা-মা’কে চিরকালই ভুগতে হবে। এমন কিছু আদব কায়দা যা শিশুকে চার বছর বয়সের আগেই বুঝিয়ে বলা উচিৎ সেগুলোর উপরই আলোকপাত করা হলোঃ

কারো কাছ থেকে কিছু চেয়ে নিতে হলে হাসিমুখে শিশুকে”প্লিজ” সম্বোধনে চাইতে উৎসাহ দিন। কেউ কিছু দিলে তাকে ধন্যবাদ দিয়ে তা গ্রহণ করা। বড়রা কথা বললে একান্ত প্রয়োজনীয় বিষয় ছাড়া তাঁদের বিরক্ত না করা। খুব জরুরি কোনো কথা থাকলে বড়দের অনুমতি নিয়ে শুরু করা। কোন কিছু করার আগে বাবা-মা কিংবা পরিবারের বড় কারো কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে করা।

বন্ধুদের বা কারো কোন কিছু অপছন্দ হলে তা নিয়ে বারবার তাকে বিরক্ত না করা কিংবা উপহাস না করা। অন্যের ব্যক্তিগত বিষয়, দক্ষতা কিংবা দুর্বল দিক নিয়ে সবার সামনে মজা না করা। যদি কেউ কুশল জিজ্ঞাসা করে তাকে হাসিমুখে উত্তর দিয়ে কুশল জেনে নেওয়া। বন্ধুদের সাথে বারবার ঝগড়ায় লিপ্ত না হওয়া । কারো ঘরে প্রবেশের পূর্বে নক করে  প্রবেশ করা। ফোনে কারো সাথে কথা বলতে হলে সালাম/ শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করা নিজের পরিচয় দেওয়া। সবার সামনে হাঁচি-কাশি দিলে নাকে-মুখে রুমাল চাপা দেওয়া।

এসব আদব-কায়দাগুলো শিশুর চার বছর বয়সের আগেই শিখিয়ে দেওয়া উচিৎ  যাতে করে ভবিষ্যতে এসব সাধারণ কারনে বাবা-মা পরে দুঃখবোধ না করেন।

সংগৃহীত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *