ভ্রমণে কী করবেন কী করবেন না

সুযোগ পেলেই ভ্রমণে বের হতে চান সবাই। দেশ কিংবা ভিনদেশ অবশ্যই তা সাধ্যের মধ্যে। নিরাপদ ভ্রমণ সবারই কাম্য। আর নিরাপদ থাকাটাও জরুরি। ভ্রমণপ্রেমী পাঠকদের জন্য রইল নিরাপদ ভ্রমণের টিপস।

ব্যাক প্যাক (প্যাকার)
বাইরের বিভিন্ন দেশে ব্যাক প্যাকিংয়ের এই ধারণা বহু পুরনো হলেও আমাদের দেশে একেবারেই নতুন নয়! তবে আশার কথা হচ্ছে, নতুন প্রজন্মের মাঝে ব্যাক প্যাকিংয়ের ধারণা দিন দিন জোরালো হচ্ছে। তাই তো কোথাও যাওয়ার আগে ব্যাক পেকার বা পেছনে ঝুলন্ত ব্যাগ নিয়ে যাওয়াটাও যেন এখন ট্রেন্ড। তাই ভ্রমণের আগে ব্যাগ প্যাকের অভ্যাস করুন। কেননা কাপড়-চোপড় ও নানা জিনিসপত্র নিতে চান, একটি ব্যাগেই নেওয়া সম্ভব।

টাকা সুরক্ষিত রাখুন
ভ্রমণের সময় সবচেয়ে প্রয়োজনীয় অনুষঙ্গ হলো টাকা। এই টাকাকে সুরক্ষিত রাখতে আলাদা রাখুন। এক জায়গায় না রেখে আলাদাভাবে রাখলে ভালো। ভ্রমণে টাকা কিংবা এটিএম কার্ড হারিয়ে গেলে বিপদে পড়তে হবে!

ডকুমেন্ট ফটোকপি কিংবা স্ক্যান কপি করে রাখুন
ভ্রমণে পাসপোর্ট এবং ভিসা, ভ্রমণ বীমা ইত্যাদি ফটোকপি কিংবা স্ক্যান কপি করে রাখুন। আর অবশ্যই তা লাগেজে রাখবেন না। এ জন্য ছোট কাঁধে ঝোলানো ব্যাগ ব্যবহার করতে পারেন। হারানোর সম্ভাবনা নেই। সঙ্গেই থাকবে আর ব্যাগ আর ডকুমেন্ট। তা ছাড়া এসব নথিপত্র স্ক্যান করে মেইলেও রাখতে পারেন।

জিন্সে ওয়ালেট রাখবেন না
জিন্স কিংবা গ্যাবার্ডিন, যাই হোক না কেন মানিব্যাগ কিংবা ওয়ালেট প্যান্টের পেছনের পকেটে রাখবেন না। জ্যাকেটের সামনের পকেটে রাখার চেষ্টা করুন। এ ছাড়া কোমরে শার্টের নিচে আলাদা ছোট্ট বেল্টওয়ালা ব্যাগও সঙ্গে রাখতে পারেন।

ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারে সাবধানতা
ভ্রমণে ইন্টারনেট ক্যাফেতে ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারে সচেতন হোন। অনেক সময় ক্যাফেতে আপনার ক্রেডিট কার্ডে কী রেকর্ড করে রাখার মতো হার্ডওয়্যার বা সফটওয়্যার থাকতে পারে।

ভ্রমণ বীমা করুন
ভ্রমণে গিয়ে অসুস্থ কিংবা আহত হলে চিকিৎসার জন্য বীমা করে রাখতে পারেন। তাত্ক্ষণিকভাবে হাসপাতালের খরচাপাতি ওই বীমা থেকে পাওয়া যাবে।

অপরিচিত ব্যক্তি কিংবা আগন্তুক এড়িয়ে চলুন
ভ্রমণের সময় বন্ধু বেশধারী বহু আগন্তুক কিংবা অপরিচিত লোক এড়িয়ে চলুন। কারণ তারা আপনার সর্বনাশের কারণ হতে পারে। তাই ব্যক্তিগত ও ভ্রমণ নিরাপত্তার জন্য তাদের এড়িয়ে চলাই উত্তম।

মোবাইল আর ইন্টারনেট সংযোগ রাখুন
ভ্রমণে প্রয়োজনীয় অনুষঙ্গ মোবাইল আর সেই মোবাইলের ক্রেডিট আর ইন্টারনেট সংযোগ রাখুন। সঙ্গে রিচার্জ কার্ড ও নেট প্যাক রাখতে পারেন। এতে সবার মাঝেই থাকবেন।

প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা
কোথাও ভ্রমণে গিয়ে আহত হলে প্রাথমিক চিকিৎসার সরঞ্জামাদি সঙ্গে রাখুন। হাসপাতাল বা ক্লিনিক ধারেকাছে না থাকলেও এসব প্রাথমিক ওষুধপত্র আপনার কাজে আসবে।

লাগেজ নিরাপদে রাখুন
রেস্টুরেন্ট কিংবা কোনো এলাকায় আপনার লাগেজ রেখে চলে যাবেন না। এতে লাগেজ হারাতে পারে। তাই যত সম্ভব লাগেজ কিংবা ব্যাগটি কাছাকাছি রাখুন। সৌজন্যে:

স‍ূত্র : বাংলাদেশ প্রতিদিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *