নিমের বিস্ময়কর উপকারিতা

চুল পড়া এবং ত্বকের র‌্যাশ বা ব্রণ কমাতে সাহায্য করে নিম। নিম পাতা বাটা কন্ডিশনার হিসাবে ব্যবহার করা যায়। নিম পাতা অ্যান্টি-ফাঙ্গাল এবং অ্যান্টি-ব্যাকটিরিয়াল। ওয়ার্ট বা চিকেন পক্স হলে নিম পাতা বেটে লাগালে উপকার পাওয়া যায়।

নিম পাতা রসে ভেজা তুলো বালিশের পাশে রাখুন। এতে পোকা-মাকড় আসবে না। মশা তাড়াতে ঘরে নিম পাতা জ্বালিয়ে রাখুন। নিমের খাদ্যগুণও অনেক। রোজ নিম পাতা খেলে জ্বরের প্রবণতা কমে। বিশেষ করে ম্যালেরিয়া থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।

নিমের সরু ডাল দিয়ে দাঁত পরিষ্কার করা ভাল। মাড়ি শক্ত হয় এবং দাঁতে সংক্রমণ হয় না।নিম পাতা আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে। কোনও অংশে কেটে গেলে বা কোনও ভাবে জখম হলে অনেকেই সেখানে নিম পাতা বেটে লাগান। এতে জখম তাড়াতাড়ি সেরে ওঠে এবং কাটার দাগ থাকে না।

নিম পাতা বেটে পেস্ট বানিয়ে আঘাতজনিত ক্ষত বা কীটপতঙ্গের কামড়ে সৃষ্ট ক্ষততে প্রতিদিন কয়েকবার করে লাগালে ক্ষত দ্রুত সেরে যায়। পরিমাণ মতো পানি ও নিম পাতা নিয়ে সেদ্ধ করুন। যতক্ষণ না পানিটা নীল হচ্ছে। এরপর তা ঠাণ্ডা করে রাখুন। গোসলের সময় চুল শ্যাম্পু দিয়ে ধোয়ার পর এই পানি দিয়ে মাথা পরিষ্কার করুন। খুশকি তাড়ানোয় কা করবে।

কিছু নিম পাতা সেদ্ধ করার পর পানিটুকু ছেঁকে পুরোপুরি ঠাণ্ডা করে নিন। এরপর সেই পানি দিয়ে চোখ ধুয়ে নিন। এতে চোখের যেকোনো ধরনের প্রদাহ, ক্লান্তি বা লালচে ভাব দূর হবে। চোখের সমস্যা দূর করবে।

কিছু নিম পাতা গুঁড়ো করে পেস্ট বানিয়ে ব্রণে লাগিয়ে দিন। যতদিন ব্রণ না শুকোচ্ছে ততদিন পর্যন্ত এভাবে লাগিয়ে যান। মুখের যেকোনো ধরনের ফুসকুড়ি, ডার্ক স্পট, ব্রণ  এবং দীর্ঘমেয়াদি ঘা দূর করে নিম।

কিছুসংখ্যক নিমপাতা গুঁড়ো করে এর সঙ্গে মধু মিশিয়ে নিন। যেকোনো ধরনের কানফোঁড়া সারাতে এই মিশ্রণের কয়েকফোঁটাই যথেষ্ট। নিমপাতা গুঁড়ো করে পেস্ট তৈরি করে তার সঙ্গে হলুদ মিশিয়ে যেকোনো ধরনের খুজলি, একজিমা, রিঙ ওয়ার্ম এবং প্রদাহজনিত ত্বকের রোগ সারানো যায়। কিছু নিমপাতা চুর্ণ করে এক গ্লাস পানির সঙ্গে মিশিয়ে প্রতিদিন সকালে পান করলে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে বহুগুণ।

ক্ষুধামান্দ্য, বমিভাব, ঢেকুর এবং অন্ত্রের কৃমিনাশক হিসেবে নিমের ফুল ব্যবহৃত হয়। এ ছাড়া চোখ ও ত্বকের রোগ এবং মাথাব্যথায়ও নিমের ফুল ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। শীতলীকরণ গুণের জন্য নিমের ফুল অ্যারোমা থেরাপিতে ব্যবহৃত হয়। ২০০৮ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে, নিম ফুলের অ্যালকোহলময় নির্যাস একটি কার্যকর কন্ট্রাসেপ্টিভ বা গর্ভনিরোধক।

নিমের ডাল দিয়ে দাঁত ব্রাশ করলে এটি দাঁতের জন্য ক্ষতিকর জীবাণুদের সঙ্গে লড়াই করে, মুখের লালায় ক্ষারের মাত্রা ঠিক রাখে, ব্যাকটেরিয়াদের দূরে রাখে, দাঁতের মাড়ির ফোলারোগ কমায় এবং দাঁতও সাদা করে। এ ছাড়া দাঁতের গোড়ায় প্লাক জমে পাথরও হতে দেয় না।

নিমের তেল ত্বকের রোগ সারাতেও বেশ কার্যকর। এ ছাড়া গায়ে মেখে ঘুমালে মশায় কামড়ায় না। নারিকেল তেলের সঙ্গে মিশিয়ে দেহেও মালিশ করলেও নানা উপকার হয়। বাচ্চাদেরকে নিমের তেল খাওয়ালে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

২-৩ ফোঁটা নিমের তেল পানিতে মিশিয়ে কালো আঁচিলে নিয়মিতভাবে লাগালে তা চিরতরে দূর হয়ে যায় এবং আর কখনো ফিরে আসে না। ফেসপ্যাকের সঙ্গে নিমের তেল মিশিয়ে লাগালে ত্বক সজীব হয়ে ওঠে। এ ছাড়া ত্বকে বলিরেখা পড়া, যেকোনো ধরনের প্রদাহ এবং খোস-পাঁচড়া দূর করে নিমের তেল।

প্রতিদিন কিছুটা পরিমাণ নিমের তেল নিয়ে মাথার ত্বক ও চুলে হালকা করে ঘষে ঘষে লাগিয়ে কিছুক্ষণের জন্য রেখে দিন। এরপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন চুল পড়া বন্ধ হয়েছে এবং খুশকিও দূর হয়ে গেছে। চুলের গোড়াও শক্তিশালী হয়ে উঠবে এতে।

এক চতুর্থাংশ কাপ তাজা নিমপাতার উপর ফোটানো গরম জল ঢালুন৷ পাঁচ মিনিট ভেজান৷ ছাঁকুন৷ ধীরে ধীরে পান করুন৷ বলা হয় এতে জ্বর কমবে, রক্তে সুগার কমবে৷ ব্লাডারের সমস্যা বা রিউম্যাটিজম, জন্ডিস, বা পেটে কৃমি, ম্যালেরিয়া বা চামড়ার অসুখ – উপকার নাকি পাওয়া যাবে সবেতেই৷ নিমের কড়া চা ক্ষত বা চোট আঘাত সারাতেও লাগে৷

About পরিবার.নেট

পরিবার বিষয়ক অনলাইন ম্যাগাজিন ‘পরিবার ডটনেট’ এর যাত্রা শুরু ২০১৭ সালে। পরিবার ডটনেট এর উদ্দেশ্য পরিবারকে সময় দান, পরিবারের যত্ন নেয়া, পারস্পরিক বন্ধনকে সুদৃঢ় করা, পারিবারিক পর্যায়েই বহুবিধ সমস্যা সমাধানের মানসিকতা তৈরি করে সমাজকে সুন্দর করার ব্যাপারে সচেতনতা বৃদ্ধি করা। পরিবার ডটনেট চায়- পারিবারিক সম্পর্কগুলো হবে মজবুত, জীবনে বজায় থাকবে সুষ্ঠুতা, ঘরে ঘরে জ্বলবে আশার আলো, শান্তিময় হবে প্রতিটি গৃহ, প্রতিটি পরিবারের সদস্যদের মানবিক মান-মর্যাদা-সুখ নিশ্চিত হবে । আগ্রহী যে কেউ পরিবার ডটনেট এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ যেকোনো বিষয়ে লেখা ছাড়াও পাঠাতে পারেন ছবি, ভিডিও ও কার্টুন। নিজের শখ-স্বপ্ন-অনুভূতি-অভিজ্ঞতা ছড়িয়ে দিতে পারেন সবার মাঝে। কনটেন্টের সাথে আপনার নাম-পরিচয়-ছবিও পাঠাবেন। ইমেইল: [email protected]

View all posts by পরিবার.নেট →

Leave a Reply

Your email address will not be published.