লেখালেখি প্রসঙ্গে

পড়া থেকে লেখা । পাঠক থেকেই লেখক। লেখালেখির ক্ষেত্রে স্বতস্ফূর্ততা লাগে, ভেতর থেকে আসতে হয়। কখনো লেখালেখিতে যদি বাধ্যবাধকতা চলে আসে, তখন লেখক তার ভালোলাগা-ভালোবাসার স্বাভাবিক গতিপথ হারায়।

লেখালেখির ক্ষেত্রে ধরাবাধা কোনো সূত্র নেই। একজন সফল লেখকের পন্থা-পদ্ধতিও আরেকজন লেখকের সাফল্যের ক্ষেত্রে সহায়ক নাও হতে পারে।

চলতে গেলে বাধা আসে, ছুটতে গিয়ে হোঁচট খেতে হয়। বাধাকে অতিক্রম করার মাধ্যমে ভয়কে জয় করার সাহস তৈরী হয়। চলার পথে অজানাকে জানা হয়। অজানাকে জানার মাধ্যমে ভুল ধারণা ভেঙ্গে যায়, জানার নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হয়।

যার পড়তে ভালো লাগে না, তার লিখতে আসা ঠিক না। আর পড়া মানে শুধু বই পড়া নয়; জীবনকে পড়া, জগতকে পড়া, সমাজকে পড়া, সৃষ্টিকে পড়া, স্রষ্টাকে পড়া ইত্যাদিও হতে পারে।

কখনো কখনো পড়ার জন্য চোখ লাগে, আবার কিছু কিছু পড়ার জন্য মন লাগে। অর্থাৎ অনুধাবন, অভিজ্ঞতা ও উপলব্ধি লেখালেখিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কল্পনা শক্তি দরকার, বিশ্লেষণী ক্ষমতা দরকার, ভাষাগত দক্ষতা দরকার।

সব পড়ে ফেলতে হবে বা সবসময় পড়তে হবে এমন কোনো কথা নেই। তবে বিশ্লেষণ করতে হলে, উপলব্ধি ক্ষমতা বাড়াতে হলে পড়তে হবেই। পড়া ও লেখা যাকে ক্লান্ত না করে আরো প্রাণবন্ত ও উদ্যমী করে তারা খুব সহজেই লেখালেখি চালিয়ে যেতে পারে।

চিন্তার দর্পণ থেকে : এক
লেখার সময়কাল: ২৮-০৯-২০২১

About আনিসুর রহমান এরশাদ

শিকড় সন্ধানী লেখক। কৃতজ্ঞচিত্ত। কথায় নয় কাজে বিশ্বাসী। ভেতরের তাগিদ থেকে লেখেন। রক্ত গরম করতে নয়, মাথা ঠাণ্ডা ও হৃদয় নরম করতে লেখেন। লেখালেখি ও সম্পাদনার আগ্রহ থেকেই বিভিন্ন সময়ে পাক্ষিক-মাসিক-ত্রৈমাসিক ম্যাগাজিন, সাময়িকী, সংকলন, আঞ্চলিক পত্রিকা, অনলাইন নিউজ পোর্টাল, ব্লগ ও জাতীয় দৈনিকের সাথে সম্পর্ক। একযুগেরও বেশি সময় ধরে সাংবাদিকতা, গবেষণা, লেখালেখি ও সম্পাদনার সাথে যুক্ত। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগে অনার্স ও মাস্টার্স করেছেন। পড়েছেন মিডিয়া ও জার্নালিজমেও। জন্ম টাঙ্গাইল জেলার সখিপুর থানার হাতীবান্ধা গ্রামে।

View all posts by আনিসুর রহমান এরশাদ →

One Comment on “লেখালেখি প্রসঙ্গে”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *