পাণ্ডিত্যহীন পন্ডিত বনাম প্রকৃত পন্ডিত

পাণ্ডিত্য অর্জন ছাড়াই কত যে পন্ডিতি!
মূর্খ যদি পন্ডিতি শুরু করে তাকে থামানো বড় দায়!
নামে পন্ডিতি! কাজে পন্ডিতি! পান্ডিত্য নাহি পাওয়া যায়!

প্রকৃত পন্ডিত রক্ত ঝড়লেও মূর্খতা করে না!
জ্ঞানী না হয়েও সবজান্তা সাজে না!
বড় বিদ্বান প্রমাণে শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে নামে না!

প্রকৃত পন্ডিত নিজেকেই সবচেয়ে অভিজ্ঞ ভাবে না!
নিজের চিন্তা ও কাজকেই সেরা দাবিও করে না!
কখনো নিজেকে শতভাগ নিপুণ বলে গো ধরে না!

প্রকৃত পন্ডিত নিজের বুঝ-জ্ঞানকেই সর্বোত্তম দাবি করে না!
সব ব্যাপারেই নাক গলানোর স্বভাব তার থাকে না!
না ভেবে হুটহাট যা মুখে আসে তা বলে না!

প্রকৃত পন্ডিত ভাবনা চিন্তা ছাড়া লিখে না!
অন্যের মতামতকে থোড়াই কেয়ার করে না!
অতিপন্ডিত আর মহাপন্ডিত হিসেবে-
পান্ডিত্য জাহির করে না!

যখন দেখবেন- শাস্রজ্ঞ নেই! পড়ুয়া নেই!
চিন্তক নেই! পান্ডিত্য নেই! সাধনা নেই!
তবে পন্ডিতরা আছে! পন্ডিতি আছে!
তখন বুঝবেন- আলোর নিচে অন্ধকার!
পন্ডিতির আড়ালে মূর্খতা!

না পড়লে, না শোনলে, না দেখলে কী আর-
পান্ডিত্য অর্জন হয়!
মাথা না খাটালে, চিন্তা-ভাবনা না করলে কী আর-
আলোর মশাল জ্বালা যায়!

আসল পন্ডিত হতে হলে অনেক কিছু জানতে হয়,
কন্টকাকীর্ণ পথেও হাসিমুখে চলতে হয়,
প্রশ্ন করতে পারতে হয়, উত্তর খুঁজে বের করতে হয়।

প্রকৃত পন্ডিত হয় জ্ঞানী, পারদর্শী, বাস্তববোধ সম্পন্ন।
প্রগাঢ় পান্ডিত্য মানেই বিচক্ষণ পদক্ষেপ,
দূরদৃষ্টিসম্পন্ন মনীষী, সময়োপযোগী সুবিবেচক।
বলিষ্ঠ ও সচেতন নেতৃত্ব আসে পান্ডিত্য থেকেই।

প্রকৃত পন্ডিত এগিয়ে যাওয়ার মতো মানসিকভাবে শক্তিমান,
আশপাশের সবাইকে এগিয়ে নেয়ার মতো বুদ্ধিমান,
উচুঁমানের দক্ষতা সম্পন্ন মেধাবী দায়িত্বশীল।
তার ভাষা শ্রোতার সহজবোধ্য, তার লেখা পাঠকের বোধগম্য।

প্রকৃত পন্ডিত নিজের ঢাক পেটাতে সর্বশক্তি নিয়োগ করে না,
জ্ঞান দেওয়ার জন্য অন্যকে জোরজবরদস্তি করে না,
কখনো দাম্ভিকতা দেখায় না, অযথা বকবক করে না।

বোধবুদ্ধি সম্পন্ন না হওয়ায় কেউ কেউ-
অতিরিক্ত কথা বলে ধরা খেয়ে বসে!
বানোয়াট ব্যাখ্যা দিয়ে আসে!
নিজের জ্ঞানের সীমার বাইরে তুলে ধরায় অন্যরা সব হাসে।

ভুয়া পন্ডিত এক ভন্ড দাম্ভিক! অযোগ্য ধোঁকাবাজ!
সম্মানীয় না হয়েও যেকোনো জায়গায়-
বুঝে না বুঝে পান্ডিত্য জাহির করাই তার কাজ!
একটা শুনলে দশটা বলার জন্য সে সদা উদগ্রীব!

মূল কাজ রেখে বড় বড় বক্তৃতা করে সে,
ভুলভাল বানোয়াট ব্যাখ্যা দিয়ে বেড়ায় সে!
বচনে অতিরিক্ততা, সদা ব্যতিব্যস্ততা,
কঠিন কঠিন শব্দে আজগুবি বিবৃতি দিয়ে যায় সে!

About পরিবার.নেট

পরিবার বিষয়ক অনলাইন ম্যাগাজিন ‘পরিবার ডটনেট’ এর যাত্রা শুরু ২০১৭ সালে। পরিবার ডটনেট এর উদ্দেশ্য পরিবারকে সময় দান, পরিবারের যত্ন নেয়া, পারস্পরিক বন্ধনকে সুদৃঢ় করা, পারিবারিক পর্যায়েই বহুবিধ সমস্যা সমাধানের মানসিকতা তৈরি করে সমাজকে সুন্দর করার ব্যাপারে সচেতনতা বৃদ্ধি করা। পরিবার ডটনেট চায়- পারিবারিক সম্পর্কগুলো হবে মজবুত, জীবনে বজায় থাকবে সুষ্ঠুতা, ঘরে ঘরে জ্বলবে আশার আলো, শান্তিময় হবে প্রতিটি গৃহ, প্রতিটি পরিবারের সদস্যদের মানবিক মান-মর্যাদা-সুখ নিশ্চিত হবে । আগ্রহী যে কেউ পরিবার ডটনেট এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ যেকোনো বিষয়ে লেখা ছাড়াও পাঠাতে পারেন ছবি, ভিডিও ও কার্টুন। নিজের শখ-স্বপ্ন-অনুভূতি-অভিজ্ঞতা ছড়িয়ে দিতে পারেন সবার মাঝে। কনটেন্টের সাথে আপনার নাম-পরিচয়-ছবিও পাঠাবেন। ইমেইল: [email protected]

View all posts by পরিবার.নেট →

Leave a Reply

Your email address will not be published.