সফলদের ৯ গুণ

আনীকাহ নাওয়ার

আমাদের সবার সব সময় মনে রাখা উচিত, কাজ করলে ছোটখাটো ভুল-ভ্রান্তি হতেই পারে এবং সেই ভুল-ভ্রান্তি থেকেই পরবর্তী শিক্ষা নিয়ে জীবনের পথে এগিয়ে চলাটাই মূল লক্ষ্য। জীবনের প্রতি আগ্রহ একটা ইতিবাচক মনোভাব রাখাই হলো নিজের আত্মবিশ্বাস গড়ে তোলার প্রথম ধাপ। কখনোই নিজের আত্মবিশ্বাস হারাবেন না। প্রত্যেক মানুষ নিজের ভুল থেকেই শেখে। আর এই ভুল থেকে শিক্ষা নেয়া হলো মূল উদ্দেশ্য। মনে রাখবেন, একবার ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলেই যে জীবনে আপনি কখনো কোনো ঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন না অথবা সব সিদ্ধান্তই নেয়ার জন্যই আপনাকে অন্য কারোর সাহায্য নিতে হবে এমন ধারণাও একেবারেই ভুল। কয়েকটি ছোটখাটো জিনিসের দিকে খেয়াল রাখলেই দেখবেন আপনার নিজেকে অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী মনে হচ্ছে।

নিজের ত্রুটি বোঝার চেষ্টা করুন
আত্মবিশ্বাস গড়ে তোলার প্রথম পদক্ষেপই হলো নিজের ত্রুটিগুলো বোঝার চেষ্টা করা। অন্য কেউ আপনার ভুল ধরিয়ে দেয়ার আগে আপনি নিজেই যদি ছোটখাটো ঘাটতি গুলো কাটিয়ে উঠতে পারেন, এর চেয়ে ভালো আর কিছুই হতে পারে না। প্রথমেই বোঝার চেষ্টা করুন, আপনি কোনো কোনো পরিস্থিতিতে অস্বস্তিবোধ করেন, কোনো কোনো মানুষের সাথে আপনি মানিয়ে চলতে পারেন না অথবা কেন হঠাৎ করেই আপনার মুড পরিবর্তন হয়। এসব লক্ষ রাখলেই দেখবেন, নিজেকে আরো ভালো করে বিশ্লেষণ করতে পারছেন। এর থেকেই গড়ে উঠবে আপনার আত্মবিশ্বাস। কারণ তখন আপনার কাছে অনেকটাই পরিষ্কার হয়ে উঠবে আপনার পজিটিভ ও নেগেটিভ দিকগুলো।

নিজের কিছু সমস্যা বন্ধুদের সাথে ভাগ করে নিন
অনেক সময়েই আমরা কোনো কোনো পরিস্থিতিতে এতটাই বিভ্রান্ত হয়ে পড়ি যে, কোন সিদ্ধান্তটা ঠিক আর কোন সিদ্ধান্তটা ভুল সেটা বুঝে উঠতে পারি না। সে ক্ষেত্রে কোনো বন্ধু অথবা আত্মীয়ের মতামত নেয়া যেতেই পারে। এতে নানা রকমের চিন্তাভাবনার আদান প্রদান হয়। তবে আপনার কোনো সিদ্ধান্ত যেন অন্য কোনো ব্যক্তির মতামতের দ্বারা প্রভাবিত না হয় সে দিকেও লক্ষ রাখবেন।

কেউই ভুলত্রুটির ঊর্ধ্বে নয়
আমরা মনে করি , কোনো কাজে সামান্য ত্রুটি থাকা মানেই আমাদের চিন্তাভাবনা অথবা কাজ করার পুরো ধরনটাই ভুলে ভরা। এই মানসিকতাই একেবারে ভুল। একটা কথা আমাদের সবারই মনে রাখা উচিত যে পৃথিবীতে কোনো মানুষই পারফেক্ট বা ভুলত্রুটি ঊর্ধ্বে নন। সবার মধ্যেই কোনো না কোনো ভুল অথবা ত্রুটিবিচ্যুতি থাকে। তবে সেই ত্রুটিবিচ্যুতিকে অতিক্রম করে জীবনে এগিয়ে চলাকেই আত্মবিশ্বাস বলে।

সব সময় পজিটিভ থাকার চেষ্টা করুন
কোনো বিষয়ে সমস্যায় পড়লে দিশেহারা না হয়ে সমস্যা নিয়ে ঠাণ্ডা মাথায় বিচার করার চেষ্টা করুন। মনে করার চেষ্টা করুন, আপনার হাতে কী কী রিসোর্স আছে এবং কারা কারা আপনাকে সেই বিশেষ সমস্যায় সাহায্য করতে পারেন। সবসময় নিজের সাথে জরুরি ফোন নম্বর রাখুন, যাতে কোনো বিপদে বা দুর্ঘটনায় কারো সাহায্য পেতে অসুবিধে না হয়। যা ঘটে গেছে তাই নিয়ে অযথা চিন্তা করে সময় ব্যয় না করে কিভাবে সেই পরিস্থিতি সামলে উঠতে পারেন তাই নিয়ে ভাবুন। নিজের আত্মবিশ্বাস অটুট রেখে অন্যের দিকেও আপনার সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন। সব সময়ে নিজেকে ব্যস্ত রাখার চেষ্টা করুন। কখনো সন্দেহ, হিংসা, অবজ্ঞার মতো নেতিবাচক অনুভূতিকে মনে জায়গা নিতে দেবেন না।

যা আছে তার জন্যে কৃতজ্ঞ থাকুন
আমার কাছে কী কী নেই তাই নিয়ে অনেকে আক্ষেপ করে সময় নষ্ট করে থাকেন কিংবা এক ধরনের দুঃখবোধ কাজ করে। কিন্তু আমরা যত মনে করব, আমাদের কাছে জিনিসপত্র, অর্থ, যশ কিংবা প্রতিপত্তি পর্যাপ্ত পরিমাণে নেই, ততই একটা নেগেটিভ অনুভূতি বাড়বে। এর ফলে আত্মবিশ্বাসেও ঘাটতি পড়বে।

অন্যের প্রশংসা করুন
অন্য কোনো ব্যক্তির কোনো ভালো গুণের প্রশংসা করাটাও আত্মবিশ্বাসের দৃঢ়তার লক্ষণ। কারণ যাদের আত্মবিশ্বাসের অভাব আছে তাদের পক্ষে অন্য কারোর প্রশংসা করা কখনোই সম্ভব নয়। কখনো কারোর সমালোচনা করবেন না। সমালোচনা করাটা কখনোই চরিত্রের দৃঢ়তা প্রকাশ করে না।

অন্যায়ের প্রতিবাদ করুন
কোনো পরিস্থিতিতেই অন্যায়কে মেনে নেবেন না। অন্যায় দেখে চুপ করে থাকাটাও পরোক্ষে অন্যায়কে প্রশ্রয় দেয়াই হয়। অন্যায়ের প্রতিবাদ মানেই যে কারোর সাথে ঝগড়া করতে হবে এমন নয়। নিজের বক্তব্য যুক্তির সাথে অন্যকে বুঝিয়ে বলুন। নিজের মন ও মেজাজের ওপরে নিয়ন্ত্রণ রেখে অন্যকে তার ভুলটা আপনি কিভাবে বুঝিয়ে বলতে পারবেন, তা থেকেই বোঝা যায় আপনার আত্মবিশ্বাস কতটা।

ভালো বই পড়ুন, আপডেটেড থাকুন
চার পাশের পরিবেশ এবং পরিস্থিতি সম্পর্কে আমরা যত বেশি জানব, আমাদের আত্মবিশ্বাস গড়ে তুলতে তা তত বেশি সাহায্য করবে। তাই অযথা কাজে অথবা গল্প করে সময় নষ্ট না করে নানা রকমের বই পড়–ন। প্রতিদিন নিয়ম করে সংবাদপত্র পড়–ন। এর ফরে পৃথিবীর নানা বিষয় সম্পর্কে আপনার জ্ঞানও বাড়বে। আর এতে অন্য কারোর সাথে আলোচনা করার সময়ে আপনি আত্মবিশ্বাসের অভাবে ভুগবেন না। অনেকের বই পড়ার অভ্যেস থাকে না। সে ক্ষেত্রে টিভিতে তো এখন চব্বিশ ঘণ্টা নানা রকমের নিউজ চ্যানেল আছে। টেলিভিশনের চলমান ঘটনা প্রবাহের ওপর নজর রাখুন।

খেয়াল রাখুন নিজের দিকে
নিজেকে সুন্দর ও সুস্থ রাখুন। শরীর ভালো তো মনও ভালো। ভালো মনের মানুষ হবেন আত্মবিশ্বাস। নিজেকেই যদি আমরা ভালোবাসতে না পারি, তাহলে কিন্তু আমাদের চার পাশের মানুষকেও আমরা ভালোবাসতে পারব না। দিনের কেছুটা সময় আপনার ভালো লাগার কোনো কাজ করুন। বাগান করা, গান শোনা, সুইমিং অথবা বই পড়ার মতো কাজে কিছুটা সময় দিন।

পরিবার.নেট

About পরিবার.নেট

পরিবার বিষয়ক অনলাইন ম্যাগাজিন ‘পরিবার ডটনেট’ এর যাত্রা শুরু ২০১৭ সালে। পরিবার ডটনেট এর উদ্দেশ্য পরিবারকে সময় দান, পরিবারের যত্ন নেয়া, পারস্পরিক বন্ধনকে সুদৃঢ় করা, পারিবারিক পর্যায়েই বহুবিধ সমস্যা সমাধানের মানসিকতা তৈরি করে সমাজকে সুন্দর করার ব্যাপারে সচেতনতা বৃদ্ধি করা। পরিবার ডটনেট চায়- পারিবারিক সম্পর্কগুলো হবে মজবুত, জীবনে বজায় থাকবে সুষ্ঠুতা, ঘরে ঘরে জ্বলবে আশার আলো, শান্তিময় হবে প্রতিটি গৃহ, প্রতিটি পরিবারের সদস্যদের মানবিক মান-মর্যাদা-সুখ নিশ্চিত হবে । আগ্রহী যে কেউ পরিবার ডটনেট এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ যেকোনো বিষয়ে লেখা ছাড়াও পাঠাতে পারেন ছবি, ভিডিও ও কার্টুন। নিজের শখ-স্বপ্ন-অনুভূতি-অভিজ্ঞতা ছড়িয়ে দিতে পারেন সবার মাঝে। কনটেন্টের সাথে আপনার নাম-পরিচয়-ছবিও পাঠাবেন। ইমেইল: poribar.net@gmail.com

View all posts by পরিবার.নেট →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *