বেড়াতে যাওয়ার আগে সতর্কতা

ভ্রমণে বেরিয়ে পড়ার আগে কয়েকটি জিনিস মনে রাখা জরুরি। ট্রেন বা প্লেন ছাড়ার আগে এক বার চোখ বুলিয়ে নিন।

সার্ভিস বুক করার আগের সতর্কতা
কোনো সার্ভিস বুক করার আগে তার ক্যানসেলেশন এবং রিফান্ড পলিসি দেখে নিন।
সস্তায় নন-রিফান্ডেবল টিকিট বা হোটেল বুক করার সময় সতর্ক থাকুন।
যেখানে বেড়াতে যাচ্ছেন সেখানে কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ বা রাজনৈতিক ডামাডোল চললে বেড়ানো বাতিল হতে পারে। সে রকম মানসিক প্রস্তুতি রাখুন।
সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগবেন না। অন্তত চার মাস আগে পরিকল্পনা শুরু করুন। যাতে বেড়ানোর তারিখ এগিয়ে এলে কোনো সমস্যা না হয়।
ছুটির সময় যেকোনো টুরিস্ট স্পটেই ভিড় বেশি থাকে। তাই যারা নির্জনতা পছন্দ করেন তাদের এ সময় বেড়াতে যাওয়ার প্ল্যান না করাই ভালো।

প্রত্যন্ত জনপদকে সম্মান
আপনার গন্তব্য শহরকেন্দ্রিক না হলে যে প্রত্যন্ত এলাকায় যাচ্ছেন সেখানকার মানুষের সংস্কৃতি সম্পর্কে শ্রদ্ধাশীল থাকুন।
কোনো আদিবাসী জনপদে বেড়াতে গেলে তাদের রীতি-নীতি, আচার-ব্যবহারকে সম্মান করুন।
কোনো পবিত্র স্থান যদি দেখতে যান, আর সেখানে যদি জুতা খুলে ঢোকার নিয়ম থাকে সেটাই মেনে চলুন।
বেড়াতে গিয়ে কোনো রকম তর্কে জড়াবেন না।
জেনে নিন, প্রাচীন কোনো মন্দিরে ঢোকার আগে গায়ে সুগন্ধী দেয়া যাবে কি-না।

স্থানীয় মানুষদের গুরুত্ব
শপিং করার সময় স্থানীয় জিনিস কেনার চেষ্টা করুন।
স্থানীয় মানুষদের গাইড হিসাবে সফরে সঙ্গে নিন। তাতে স্থানীয় মানুষদের সঙ্গে আপনার ‘কমিউনেকশন গ্যাপ’ থাকবে না।
স্পটে পৌঁছে স্থানীয় হোটেল মালিক বা গাইডের ব্যবহার খারাপ মনে হলে বিষয়টি অন্যভাবে বোঝার চেষ্টা করুন। ধরুন, আপনি এক পাহাড়ি গ্রামে বেড়াতে গিয়েছেন। সেখানে গোসলের জন্য আধ বালতি পানি পেয়েছেন। আর তাতেই আপনার মেজাজ গরম হয়ে যাচ্ছে। আপনি টাকাও দিচ্ছেন। কিন্তু প্রয়োজন মতো পানি পাচ্ছেন না। ভেবে দেখুন, ওই অর্ধেক বালতির পানিতে আপনার গোসল না-ও হতে পারে। তবে পাহাড়ি মানুষদের ওই পানিটুকুই অনেক দূর থেকে সংগ্রহ করতে হয়। তাই টাকা দিয়ে সবটা কেনা সম্ভব নয়।

জঙ্গলে মঙ্গল
জঙ্গলে বেড়াতে গেলে গাছের রঙের পোশাক পরুন।
জঙ্গলের নির্জনতা বজায় রাখুন।
উজ্জ্বল রঙের পোশাক পরবেন না। তাতে বন্যপ্রাণীরা অনেক দূর থেকে আপনাকে দেখতে পাবে। ফলে আরো দূরে পালিয়ে যাবে তারা।
বন্যপ্রাণীদের দেখতে না পেলে জঙ্গলে দাঁড়িয়েই জোরে জোরে কোনো মন্তব্য করবেন না। মনে রাখবেন, তারা আপনাকে দেখা দিতে বাধ্য নয়।
কোনো ধরাবাঁধা নিয়ম নেই। কিন্তু অভিজ্ঞতায় দেখা গিয়েছে, বন্যপ্রাণীরা গ্রীষ্মের ভোর বা বিকেল আর শীতের পড়ন্ত বেলায় গভীর জঙ্গলের আওতা ছেড়ে বেরিয়ে আসে। সে সময় তারা পানি খেতে সল্টপিটে আসে। আর শীতকালে তাদের রোদ পোহাতেও দেখা যায়। তাই জঙ্গলে বেড়াতে গেলে সাফারি বুক করার সময় এটা মাথায় রাখতে পারেন।

দূষণ থেকে দূরে
প্লাস্টিক দূষণ করবেন না। নির্দিষ্ট জায়গায় ময়লা ফেলুন।
এমন কিছুর চাহিদা রাখবেন না যেটা প্রত্যন্ত এলাকায় পাওয়া যায় না।

সূত্র : dhakatouristclub.com

পরিবার.নেট

About পরিবার.নেট

পরিবার বিষয়ক অনলাইন ম্যাগাজিন ‘পরিবার ডটনেট’ এর যাত্রা শুরু ২০১৭ সালে। পরিবার ডটনেট এর উদ্দেশ্য পরিবারকে সময় দান, পরিবারের যত্ন নেয়া, পারস্পরিক বন্ধনকে সুদৃঢ় করা, পারিবারিক পর্যায়েই বহুবিধ সমস্যা সমাধানের মানসিকতা তৈরি করে সমাজকে সুন্দর করার ব্যাপারে সচেতনতা বৃদ্ধি করা। পরিবার ডটনেট চায়- পারিবারিক সম্পর্কগুলো হবে মজবুত, জীবনে বজায় থাকবে সুষ্ঠুতা, ঘরে ঘরে জ্বলবে আশার আলো, শান্তিময় হবে প্রতিটি গৃহ, প্রতিটি পরিবারের সদস্যদের মানবিক মান-মর্যাদা-সুখ নিশ্চিত হবে । আগ্রহী যে কেউ পরিবার ডটনেট এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ যেকোনো বিষয়ে লেখা ছাড়াও পাঠাতে পারেন ছবি, ভিডিও ও কার্টুন। নিজের শখ-স্বপ্ন-অনুভূতি-অভিজ্ঞতা ছড়িয়ে দিতে পারেন সবার মাঝে। কনটেন্টের সাথে আপনার নাম-পরিচয়-ছবিও পাঠাবেন। ইমেইল: poribar.net@gmail.com

View all posts by পরিবার.নেট →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *